Home / স্বাস্থ্য টিপস / ডায়াবেটিস রোগীর সকালের খাবার কি কি জেনে নিন

ডায়াবেটিস রোগীর সকালের খাবার কি কি জেনে নিন

আমাদের জানা ভালো, দিনে-রাতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ(Important) যে বেলার খাবার তা হলো প্রাতরাশ। বিশেষ করে ডায়াবেটিস(Diabetes) রোগীদের জন্য তো বটেই। যদি কেউ সকালবেলা উঠে দেখেন, রক্তের সুগারের মান উঁচুতে, যেমন—৩০০ মিলিগ্রাম, তবু প্রাতরাশ খেতে হবে। তবে এতে প্রোটিনের প্রাধান্য থাকবে। শর্করা সামান্য খেলে হয়, যেহেতু রক্তের শর্করা(Sugars) উঁচুতে। সে জন্য একে আর বাড়ানোর প্রয়োজন নেই। তবে পরের বেলার খাবারে যখন রক্তের সুগার নেমে আসবে, তখন আবার শর্করাকে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে ঢোকাতে হবে খাবারে।

ডায়াবেটিস রোগীর সকালের খাবার কি কি জেনে নিন

কী খেতে হবে?

প্রাতরাশে চাই সুষম(Balanced) খাবার। ভালো প্রাতরাশে থাকবে প্রোটিন(Protein), চর্বি ও জটিল শর্করা। এ সময় ফল খেতে হবে। আর ফলের জুসের চেয়ে গোটা ফল খাওয়া ভালো। ফলের জুস(Fruit juice) খেলে রক্তের সুগার মানের যে ওঠানামা হয়, গোটা ফল খেলে তা হয় না। প্রাতরাশের জন্য অনেক ভালো বিকল্প আছে। যেমন :

একটি ডিমের শ্বেত অংশের ওমলেট, এক স্লাইস আটার রুটি, এক টুকরো ফল(Fruit)।
একটি ডিমের স্যান্ডউইচ(Sandwich), আটার রুটি আর এক টুকরো ফল।
প্রতি সপ্তাহে চারটি ডিমের বেশি খাওয়া ঠিক হবে না। সে জন্য ডিমের শ্বেত অংশের স্যান্ডউইচ(Sandwich) নিলে ভালো, অথবা একটি ডিমের সঙ্গে দুটো বা তিনটি ডিমের শ্বেত অংশের ক্রাম্বল করে খেতে পারেন।
এক বাটি ওটমিল(Oatmeal) তৈরি করুন। শস্যখাদ্য বেশি হয়ে যায় সহজেই, তাই কতখানি নিলেন তা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
দুই স্লাইস গমের রুটি(Wheat bread) এবং পিনাট মাখন দিয়ে তৈরি স্যান্ডউইচ খাওয়া যায়।
দই, বাদাম ও ফল।
খই, মুড়ি, পপকর্ন ও ননিহীন দুধ(Milk)।
আঁশযুক্ত শস্য খেলে রক্তের সুগার থাকে সুনিয়ন্ত্রিত।

Check Also

ব্লাড ক্যানসার বাসা বাঁধে শরীরের যেসব লক্ষণে

ব্লাড ক্যানসার বাসা বাঁধে শরীরের যেসব লক্ষণে

আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজ আপনাদের মাঝে অরেকটি আর্টিকেল নিয়ে হাজির হলাম। আজ আপনাদের ...

2 comments

  1. Bardzo podoba mi się twoja strona. Jeżeli chcesz się lepiej ze mną poznać i potrzebujesz odżywek lub suplementów diety na masę sprawdź mój blog!

  2. Thanks for the useful information on credit repair on your web-site. The thing I would offer as advice to people will be to give up a mentality they will buy at this moment and pay back later. As being a society most people tend to repeat this for many factors. This includes family vacations, furniture, plus items we really want to have. However, you must separate a person’s wants from the needs. When you’re working to fix your credit score you really have to make some trade-offs. For example you possibly can shop online to economize or you can click on second hand suppliers instead of highly-priced department stores to get clothing.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *